Home » অপরাধ » ঈশ্বর দাবিদার রাম রহিম এখন জেলে থাকবেন ১০ বছর

ঈশ্বর দাবিদার রাম রহিম এখন জেলে থাকবেন ১০ বছর

image

ডেইলী বরিশাল ডটকম।। নিজেকে ভগবান দাবি করতেন রাম রহিম, সারা পৃথিবীর ৬কোটি ভক্ত গণও তাই বিশ্বাস করতেন। ভগবান দাবিদার গুরু দুইশত নারী সেবাদাসী পরিবেষ্টিত থাকতেন । এদের মধ্যে ৪৫জন অভিযোগ করেছেন, তারা যাকে ভগবান মনে করতেন তিনি তাদের সাথে জোড় করে যৌনাচার করেছে।

শেষমেশ ১৫ বছর আগে দুজন নারীর অভিযোগে ধর্ষণের অপরাধে রাম রহিম ফেঁসে গেলেন। ভক্তরা গরম, তাদের ভগবান ধর্ষণ করতেই পারেনা, বিক্ষোভে প্রাণ গেলো ৩৮ জনের, আহত হয়েছে দুই শতাধিক।

ভগবান ভক্তদের বিক্ষোভ এড়াতে বিচারক আদালত নিয়ে গেলেন জেলে, সেখানে রায় ঘোষিত হল আজ।

ভগবান রাম রহিম রায় শুনে কাঁদলেন, অনুনয় করে বললেন ‘মুঝে মাফ কর দো।’

রাম রহিম ১৯৯৭ নম্বর কয়েদী হিসাবে জেল কাটাবেন। তার ২০বছর সাজার বিরুদ্ধে আপিল করবেন। কিন্তু হত্যা সহ আরো কিছু মামলা তার পেছন পেছন আসছে।

বাংলাদেশের দেওয়ানবাগী, হরিয়ানার রাম রহিম এরা সবাই আসলে ব্যাবসায়ী। মানুষ তার নিয়তি জানেনা, আল্লাহর ওপর সঠিক বিশ্বাস ছাড়া মানুষ খুব অসহায়। তাই ওশো, গুরু, মহারাজ, এক ধরণের পীর, ফকির, তান্ত্রিক, এরা মানুষের অসহায়ত্ব আর জীবনের অনিশ্চয়তাকে পুঁজি করে ব্যবসা করে।

একই ভাবে এক ধরণের রাজনীতিকরাও মানুষের আশা ভরসা আর স্বপ্নকে পুঁজি করে ব্যবসা করে।

এই দুই ধরণের অপারেটরদের একই ধরণের ক্যাপিটাল–বিনা পয়সায়, বিনা পুঁজিতে মানুষকে শুধু স্বপ্ন দেখাও, কথা বলো, তুমি হিরো, তুমি নেতা। তোমার জন্যে মানুষ জান দিবে হাসতে হাসতে। ধর্ষণকারী গুরুর জন্যে ৩৮ জন জান দিয়ে দিলো। 

২০১৫ সনে রামরহিম ‘মেসেঞ্জার অফ গড’ নামে সিনেমা বানিয়েছিলো। সে গান গাইতো, নাচতো, অভিনয় করতো, ভক্তদের কাছ থেকে আসতো কোটি কোটি টাকা।

আজ তার পতনের পরে কোনো বিক্ষোভ হয়নি। কেউ রাস্তায় নামেনি। প্যারামিলিটারির বন্দুকের ভয়ে নাকি মানুষের স্বপ্ন ভঙ্গের কারণে তা নিয়ে কেউ কোনো কথা বলেনি।